করোনা: তাজমহল বন্ধের সুপারিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | প্রকাশিত : ০৭ মার্চ ২০২০, ১৮:২৮

করোনা আতঙ্কে বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম তাজমহল সাময়িক বন্ধ রাখার সুপারিশ করেছে ভারতের উত্তর প্রদেশ অঙ্গরাজ্যের আগ্রা জেলার রাজধানী শহরের মেয়র নবীন জৈন। পাশাপাশি ভারতের সব ঐতিহাসিক স্মৃতিসৌধগুলি সাময়িক বন্ধেরও সুপারিশ করেছেন তিনি। সূত্র: এনডিটিভি।

আগ্রার মেয়র নবীন জৈন বলেন,‘আগ্রায় প্রচুর বিদেশি পর্যটক আসেন। ফলে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পরার ঝুঁকি রয়েছে। যতক্ষণ পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত ভারত সরকারকে তাজমহলসহ দেশের সমস্ত ঐতিহাসিক স্মৃতিসৌধগুলি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করছি। ’

ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে ৩১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত দুই মাসে দেশটির বিমানবন্দরগুলিতে প্রায় ৬ লাখ মানুষের করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিভিন্ন দেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস। চীনের পর ইরান ও ইতালিতে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আক্রান্ত রোগী বাড়ছে ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, পর্তুগালসহ নানা দেশে। শুক্রবার পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে। করোনা নিয়ে লাইভ আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডমিটার জানিয়েছে, শুক্রবার পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২ হাজার ২২৪ জন। এছাড়া করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৫৭ হাজার ৬১১ জন।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে শুধুমাত্র চীনের মূল ভূখণ্ডেই আক্রান্ত হয়েছেন ৮০ হাজার ৬৫১ জন। আর মারা গেছেন ৩ হাজার ৭০ জন। চীনের বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা দক্ষিণ কোরিয়ায় এবং সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছেন ইতালিতে। দক্ষিণ কোরিয়ায় এখন পর্যন্ত ৬ হাজার ৭৬৭ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ৪৪ জন। ইরানে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজার ৪৪৭ এবং মারা গেছে ১২৪ জন। অপরদিকে ইতালিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজার ৬৩৬ এবং মৃত্যু হয়েছে ১৯৭ জনের।

এছাড়া ফ্রান্স, জার্মানি, স্পেন, সিঙ্গাপুর, কুয়েত, বাহরাইন, যুক্তরাজ্যে, মালয়েশিয়া, কানাডা, সুইজারল্যান্ডসহ ৮৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

করোনাভাইরাস মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

S…. (ঢাকা টাইমস)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*